Categories
রাজ্য

বিজেপিতে মুকুলের ছায়া ক্রমশ প্রশস্ত

আমফান ঝড়ে গাছের মুকুল অক্ষত কিনা,সে তথ্য রাজ্যবাসীর গোচরে থাকুক আর না থাকুক,রাজ্য রাজনীতিতে ক্রমশ জাঁকিয়ে বসছেন মুকুল রায়।

গতকালই ঘোষিত হল রাজ্য বিজেপির নতুন কমিটি,তাতে যদিও নাম নেই মুকুল রায়ের।কিন্তু তথ্যভিজ্ঞ মহল বলছে কমিটিতে নাম না থাকলেও ,নতুন কমিটিতে মূলত প্রাধান্য পেয়েছেন তার হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেওয়া নেতারাই।

অর্জুন সিং-লোকসভা ভোটের আগে বিজেপিতে যোগদান,ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে ধরাশায়ী করেন দুবারের সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদীকে এবং নিজের ছেড়ে যাওয়া বিধানসভায় জিতিয়ে আনেন ছেলেকেও।নতুন কমিটির সহ সভাপতি

সৌমিত্র খাঁ-বরাবরই মুকুল অনুগামী হিসেবে পরিচিত,বিগত দিনে তার কংগ্রেস থেকে তৃণমূল যোগও ছিল মুকুলের হাত ধরেই।লোকসভা ভোটের আগে মুকল রায়ের হাত ধরেই আবার দলবদল,রীতিমতো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে বিপুল ভোটে দ্বিতীয় বার বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে জয়লাভ।রাজ্য বিজেপির নতুন যুব সভাপতি

সব্যসাচী দত্ত– গত লোকসভা নির্বাচনে মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগদান করেন,প্রাক্তন এই তৃণমূল নেতা।গতকাল পেলেন রাজ্য সম্পাদকের দায়িত্ব।

দুলাল বর-লোকসভা ভোটের আগে কংগ্রেস থেকে বিজেপি যোগ বাগদার বিধায়কের,সূত্র সেই মুকুল রায়।বনগাঁ লোকসভার টিকিট কার্যত পাকা ছিল,কিন্তু মতুয়া ঠাকুর বাড়ির শান্তনু ঠাকুর ভোটের লড়ার ইচ্ছে প্রকাশ করলে,অধরা রয়ে যায় লোকসভা।বিজেপি তফসিলি মোর্চার নয়া সভাপতি

খগেন মুর্মু– লোকসভা ভোটের আগে মুকুলের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেন হাবিবপুরের তৎকালীন সিপিএম বিধায়ক।লোকসভায় টিকিট পেয়ে পর্যুদস্ত করেন গনি পরিবারের কন্যা দুবারের সাংসদ মৌসম নূরকে।বিজেপি এসটি মোর্চার নয়া সভাপতি

রাজনৈতিক মহলের ধারনা, তৃণমূলে মুকুল যে জায়গায় ছিলেন, সেখান থেকে মুকুলের পক্ষে রাজ্য কমিটির সভাপতি ছাড়া অন্য কোনো পদই মানানসই হবেনা।আর সভাপতি হিসেবে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের পছন্দ দিলীপ ঘোষই।সেক্ষেত্রে সভাপতি পদপ্রাপ্তি হবে না জেনে,হয়ত মুকুল নিজেই দূরে থাকতে চেয়েছেন এই কমিটি থেকে। মুকুল নিজে কমিটিতে না থাকলেও তার অনুগামীরা নতুন কমিটির গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় আসায়,রাজ্য রাজনীতিতে তার ছায়া যে প্রশস্ত হল তা বলাই বাহুল্য।