Categories
দেশ শিলিগুড়ি

‘তোমার দ্বারা কিছু হবে না’ শুনে বড় হওয়া সোনাঝরিয়া আজ দেশের প্রথম আদিবাসী মহিলা উপাচার্য

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে সারা দেশ জেনে গেছে তার কৃতিত্ব ও নতুন পদপ্রাপ্তি।তিনি সোনা ঝারিয়া মিনজ , দেশের প্রথম আদিবাসী মহিলা হিসেবে ঝাড়খন্ডের সিধো কানু মুর্মু বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসাবে নিযুক্ত হলেন।বর্তমানে তিনি জহরলাল নেহেরু ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের প্রফেসর পদে কর্মরত।

আজ গোটা দেশ ওনার সাফল্যে বাহবা দিচ্ছে,কিন্তু পথটা মোটেই সহজ ছিলনা।জানা গেছে, সোনাঝরিয়া মিনজের স্কুল-পর্ব ছিল রাঁচিতেই। সেখান থেকেই শুরু যুদ্ধ ও সংকল্প। বহুবার শুনেছেন, “তোমার দ্বারা হবে না।” এই মন্তব্য এসেছে শিক্ষকদের থেকেই। তবে এর কারণ এমনটা নয়, যে পড়াশোনায় খারাপ ছিলেন সোনাঝরিয়া। এই মন্তব্যের কারণ ছিল এক ও একমাত্র তাঁর আদিবাসী-পরিচয় এবং ইংরেজি ভাষার প্রতি অনর্গল দক্ষতার খামতি।

তখনই সোনাঝরিয়া ঠিক করে নেন, হার মানবেন না, দেখিয়ে দেবেন, তিনিও পারেন। তাঁরাও পারেন। অনর্গল ইংরেজি বলতে পারাটা কেবলই অভ্যাসজাত দক্ষতা, তার বেশি কিছু নয়। এই জেদ এবং মেধার জোর প্রতিফলিত হয় রেজাল্টে।

স্কুলের পাঠ শেষ করে, ভাল রেজাল্ট নিয়ে চেন্নাই চলে যান তিনি। সেখানকার মাদ্রাজ খ্রিস্টান কলেজ থেকে স্নাতক ,তার পরে গণিতে এমএসসি করেন সেখানেই। এর পর এমফিল ও পিএইচডি করেন নয়াদিল্লির জেএনইউ থেকে, কম্পিউটার সায়েন্স নিয়ে। তার পরে সেখানেই অধ্যাপনা করেন কয়েকবছর।এবং অবশেষে মিলল সেই অনন্য সন্মান,ইতিহাস সৃষ্টি করে সোনাঝরিয়া আজ দেশের প্রথম আদিবাসী মহিলা উপাচার্য।

ওঁরাও উপজাতি সম্প্রদায়ের সোনা ঝরিয়া মিনজের পিতা নিমল মিনজ একজন বিশিষ্ট স্বাধীনিতা সংগ্রামী।

উল্লেখ্য,পদাধিকার বলে ঝাড়খন্ডের রাজ্যপাল দ্রৌপদী মুর্মু ঝাড়খন্ডের ইউনিভার্সিটিগুলির আচার্য।
তিনিও আদিবাসী সম্প্রদায় থেকে এসেছেন।